1. shahalom.socio@gmail.com : admin :
  2. zahangiralam353@gmail.com : Channel Inani :
মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ০৩:৩৫ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
কঠোর লকডাউনকে পুঁজি করে মহেশখালীর বড়দিয়া প্যারাবন কেটে অবৈধ চিংড়িঘের পুনরায় দখল নিল প্রভাবশালী সিন্ডিকেট! নাইক্ষ্যংছড়ি ১১ বিজিবি অভিযান চালিয়ে ৯৫৮০ পিচ বার্মিজ ইয়াবা ও গাড়িসহ আটক দুই মহেশখালীতে কঠোর লকডাউনের ৩য় দিনে ৩৮ মামলায় ৮ হাজার ৪শত টাকা জরিমানা! মহেশখালী পৌরসভায় ৪০৬ কর্মজীবী ল্যাকটেটিং মহিলাদের মাঝে ৩৩লক্ষ ৬৪ হাজার টাকা বিতরণ মহেশখালীতে কঠোর লকডাউনের ২য় দিনে ৮ মামলায় ৪ হাজার টাকা জরিমানা! দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীর পাহাড়ে শেখ রাসেল শিশু পার্কের শুভ উদ্বোধন করলেন-এমপি আশেক মহেশখালীতে কোরবানির মাংস ভাগবাটোয়ারা ইসুতে একই পরিবারে ৪ জনের বিষপান নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারীতে প্রধানমন্ত্রীর উপহার পেল ৩২৭ পরিবার। ইনানীতে সমুদ্র সৈকতের চর দখল করে স্থাপনা নির্মাণের হিড়িক দেখার কেউ নেই
শিরোনাম
কঠোর লকডাউনকে পুঁজি করে মহেশখালীর বড়দিয়া প্যারাবন কেটে অবৈধ চিংড়িঘের পুনরায় দখল নিল প্রভাবশালী সিন্ডিকেট! নাইক্ষ্যংছড়ি ১১ বিজিবি অভিযান চালিয়ে ৯৫৮০ পিচ বার্মিজ ইয়াবা ও গাড়িসহ আটক দুই মহেশখালীতে কঠোর লকডাউনের ৩য় দিনে ৩৮ মামলায় ৮ হাজার ৪শত টাকা জরিমানা! মহেশখালী পৌরসভায় ৪০৬ কর্মজীবী ল্যাকটেটিং মহিলাদের মাঝে ৩৩লক্ষ ৬৪ হাজার টাকা বিতরণ মহেশখালীতে কঠোর লকডাউনের ২য় দিনে ৮ মামলায় ৪ হাজার টাকা জরিমানা! দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীর পাহাড়ে শেখ রাসেল শিশু পার্কের শুভ উদ্বোধন করলেন-এমপি আশেক মহেশখালীতে কোরবানির মাংস ভাগবাটোয়ারা ইসুতে একই পরিবারে ৪ জনের বিষপান নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারীতে প্রধানমন্ত্রীর উপহার পেল ৩২৭ পরিবার। ইনানীতে সমুদ্র সৈকতের চর দখল করে স্থাপনা নির্মাণের হিড়িক দেখার কেউ নেই

এমনিতেই ১১ লাখ রোহিঙ্গার চাপে পৃষ্ট হওয়ার অবস্থায় উখিয়াবাসী। রাসেল চৌধুরী

  • আপডেট করা হয়েছে সোমবার, ২৩ মার্চ, ২০২০
  • ২১৯ বার পড়া হয়েছে

 

আমাদের উখিয়া আজ আর আমাদের হাতে নেই। এর নিয়ন্ত্রণ চলে গেছে রোহিঙ্গা ও তাদের নিয়ে কাজ করা এনজিওগুলোর হাতে। আমাদের জনপদে আমাদের চলতে হয় জম্ম নিবন্ধক, ন্যাশনাল আইডি কার্ড হাতে নিয়ে! দফায় দফায় জেরার মুখে!! আমাদের চিরচেনা উখিয়ায় কতোদিন প্রাণখোলে নি:শ্বাস নিতে পারিনা। ধুলো বালির কারণে আমাদের নাকমুখ চেপে ধরে চলতে হয়। চলার সুযোগও নেই। অতিরিক্ত গাড়ীর চাপে রাস্তায় বেরোতে পারিনা। ঘন্টার পর ঘন্টাা যানজটে পড়ে নাকাল হয়নি এরকম লোক উখিয়ায় একজনও খোঁজে পাবেন না। কতোদিন, বাজারে গিয়ে তাজা মাছ পায় না, তরিতরকারি পায়না, আমরা বাজারে পৌছার আগেই তা চড়া দামে রোহিঙ্গারা কিনে নিয়ে যায়।
আমাদের প্রতিটি দিন কাটছে নিদারুণ কষ্টের মধ্যে।
আপনি কি জানেন, আমরা উখিয়াবাসী রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর কাছে একপ্রকার জিম্মিদশার মধ্যে আছি? প্রতিনিয়ত তাদের ভয়ে তটস্থ থাকি? তাদের হাতে নিগৃহীত হওয়ার ভয়ে গা রক্ষা করে চলি! তাদের কারণেই আমরা মারাত্মক সামাজিক, অর্থনৈতিক, পরিবেশ, প্রতিবেশ ও জীববৈচিত্র্য সংকটে?
শুধু কি তাই, আমাদের রাতবিরেত কাটে তাদের অস্ত্রের ঝনঝনানির ভয়ে!! আমাদের ধানি জমি, খেতখামার পাহাড় সব আপনার নির্দেশে তাদের দিয়ে দিয়েছি, তা তারা ভালমতোই ভোগ করছে।
আমরা সব সয়ে যাচ্ছি। টুঁশব্দ করিনি। এতো ঝুঁকির মাঝে গত কয়েকদিন ধরে নতুন করে করোনা ঝুঁকির মধ্যে রয়েছি আমরা। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিদেশীদের অবাধ যাতায়াত। এ কারণে জেলার অন্যান্য এলাকার চেয়ে ঝুঁকিটা আমাদেরই বেশী। এরমধ্যে শুনলাম, আপনি কোয়ারান্টাইন সেন্টার করার জন্য উখিয়াকে বেছে নিয়েছেন!! বাহ্ ডিসি সাহেব, বাহ্।
এই যেন মরার উপর খাড়ার ঘা। ঝুঁকির উপর ঝুঁকি। গজবের উপর গজব।
আপনার এ ঘোষণার পর থেকে বৃহত্তর ইনানীর মানুষ ক্ষুব্ধ, হতাশ। আতংকিত, উৎকণ্ঠিত। বলা যায়, প্রত্যেকের হার্টবিট বেড়ে গেছে।
প্লিজ, আমাদের প্রতি সদয় হোন, দয়া করে আমাদের রেহাই দিন।।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

Designed by: Nagorik It.Com